সর্বাধিক প্রয়োজনীয় ১০ উইন্ডোজ শর্টকাট যা অধিকাংশ ব্যবহারকারীই জানে না

আমাদের বর্তমান সময়ে সকল কাজই কম বেশি কম্পিউটার কেন্দ্রিক হয়ে উঠেছে। আগামীর দিন গুলোতে এই কম্পিউটার নির্ভরশীলতা আরো বাড়বে এটাই স্বাভাবিক। চাকুরি কিংবা ব্যবসা অথবা ব্যক্তিগত ব্যবহার সব ক্ষেত্রেই কম্পিউটার সমান ভাবে আমরা কাজে লাগাই। মজার বিষয় হলো এই কম্পিউটার ব্যবহার আরো সহজ, আকর্ষণীয় ও দক্ষতার পরিচয় বহন করে যখন আপনি এতে প্রচুর কিবোর্ড সর্টকাট ব্যবহার করেন। কিবোর্ড শর্টকাট আপনার কাজের সৃজনশীলতা ও দ্রুততা নিয়ে আসে ফলে আপনি যে কোন সাধারণ কম্পিউটার ব্যবহারকারীর চেয়ে অনেক গুণ দক্ষতার পরিচয়ে এগিয়ে থাকেন। এছাড়াও বেশ কিছু শর্টকাট আছে যা আপনার মনে হতে পারে নতুন ফিচার। উইন্ডোজ-১০ অপারেটিং সিস্টেমের রয়েছে পূর্বের সকল অপারেটিং সিস্টেমের চেয়ে অনেক এডভান্স স্মার্ট কিছু শর্টকাট। আজ আমি আপনাদের এমনই কিছু এডভান্স শর্টকাট জানাবো উইন্ডোজ-১০ এর যা জানলে আপনি নিশ্চিত ভাবেই অবাক হবেন।

Close ScreenShot

আপনি যদি আমার মত দিনে প্রচুর স্ক্রিনশট নিয়ে কাজ করেন তাহলে এই অংশটি আপনার জন্য। আমাদের এমন অনেক স্ক্রিনশট নিতে হয় যেগুলো ক্লোজশট আকারে নিতে হয় অর্থাৎ সমস্ত স্ক্রিন বাদ দিয়ে শুধু নির্দিষ্ট অংশের ফটো ক্যাপচার। এই ক্ষেত্রে আমরা সাধারণত স্ক্রিনশটটি নিয়ে পরে এডিট করে নিই। কিন্তু আপনি উইন্ডোজ-১০ এ চাইলেই ক্লোজশট নিতে পারেন। এই ক্ষেত্রে আপনাকে শর্টকাট হিসেবে windows+shift+s চাপতে হবে। তারপর মাউস দিয়ে সিলেক্ট করে নিতে হবে কাঙ্ক্ষিত অংশটুকু।

Snap Windows

উইন্ডোজ ১০ শর্টকাট

যদি কখনো মনে হয় আপনার পিসিতে একই সময়ে দুটি কাজ (Task) করা প্রয়োজন তাহলে আপনি উইন্ডোজ-১০ এ খুব সহজেই তা করতে পারবেন শর্টকাট কমান্ড ব্যবহার করে। মনে করুন আপনার প্রিয় একটি টিমের খেলা হচ্ছে আর আপনাকে এই খেলার সময়টিতেও খুব ইম্পরট্যান্ট একটা কাজ করতে হবে। তাহলে চিন্তার কোন কারণ নেই। আপনি স্ক্রিনের একপাশে খেলা দেখতে পারেন ইউটিউবে এবং অপর পাশে সিভিও তৈরি করতে পারেন মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে। ধরুন একই সময়ে আপনি গুগল ক্রোম ব্রাউজার ও মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ওপেন করে রেখেছেন। তো এখন কিবোর্ডের windows+left arrow কি চাপুন। তাহলে বর্তমানে যে উইন্ডোতে কাজ করছিলেন সেটা মনিটরের বাম পাশের অর্ধেক স্ক্রিনজুড়ে সেট হয়ে যাবে।

আরো পড়ুন: কম্পিউটার ব্যবহারের এই ১৪টি মাস্টার টিপস সবারই জানা উচিত

এবার ডান পাশে দেখতে পাবেন বাকি যে ইউন্ডো খুলে কাজ করছিলেন সেটি বা সেগুলো। এখন সেখান থেকে যেটি ডান পাশের অর্ধেক স্ক্রিনজুড়ে দেখতে চান মাউস দিয়ে সেটি সিলেক্ট করুন ব্যাস। কিংবা ধরুন বর্তমানে দুইটা আলাদা উইন্ডোতেই কাজ করছেন কিন্তু সেটা পুরো অর্ধেক স্ক্রিনজুড়ে নেই। এখন যেটি স্ক্রিনের বাম পাশে পুরো অর্ধেক স্ক্রিনজুড়ে দেখতে চান সেটি সিলেক্ট করে windows+left arrow কি চাপুন। আর যেটি স্ক্রিনের ডান পাশে পুরো অর্ধেক স্ক্রিনজুড়ে দেখতে চান সেটি সিলেক্ট করে windows+right arrow কি চাপুন।

Rename Folder

নতুন ফোল্ডার খুললে ডিফল্ট অবস্থায় new folder লিখা থাকে। একে রিনেম করতে আমরা ফোল্ডারে রাইট ক্লিক করে রিনেম অপশনে ক্লিক করে নাম দেই। উইন্ডোজ-১০ ব্যবহারকারী গণ এই কাজটি কিবোর্ড থেকে করতে পারেন শুধু ফোল্ডার সিলেক্ট করে F2 চেপে (ল্যাপটপের ক্ষেত্রে Fn+F2)।

Virtual Desktop

virtual desktop

আপনার একই কম্পিউটার ব্যবহার করে যদি অনেক গুলো কাজ করতে চান তাহলে উইন্ডোজ-১০ ব্যবহারকারী গণ ভার্চুয়াল ডেস্কটপ বানাতে পারেন খুব সহজেই। ভার্চুয়াল কম্পিউটারে একেক অংশে আলাদা আলাদা ভাবে কাজ করতে পারবেন ঠিক যেমন আপনার আলাদা আলাদা কম্পিউটার থাকলে করতে পারতেন। ভার্চুয়াল কম্পিউটার আপনি মাউস দিয়েও বানাতে পারেন আবার কিবোর্ড শর্টকাট দিয়েও বানাতে পারেন। মাউস দিয়ে ভার্চুয়াল কম্পিউটার বানাতে স্টার্ট বারের সার্চ আইকোনের পাশের আইকোনে ক্লিক করতে পারেন। আর কিবোর্ড সর্টকাট দিয়ে বানাতে windows+control+D চাপুন। এইভাবে যতবার চাপবেন তত বার ভার্চুয়াল কম্পিউটার ক্রিয়েট হবে। ভার্চুয়াল কম্পিউটার গুলো ব্যবহার করতে windows+control+ left/right arrow চাপতে হবে।

Past Plain Text Only

আমরা যদি কোন ওয়েবসাইট থেকে টেক্সটের কিছু বা সম্পূর্ণ কপি করি তাহলে দেখা যায় লিখার সাথে সাথে ওই ওয়েবসাইটের বিভিন্ন বার, ইমেজ, লিংক ইত্যাদি ফর্মেট কপি হয়ে যায় এবং যখন পেস্ট করা হয় তখন বাড়তি ফরমেট সহ পেস্ট হওয়ায় বেশ সমস্যা হয়। সমস্যা সমাধানে ওয়েবসাইটের লিখা কপি করে ওয়ার্ড ডকুমেন্টে পেস্ট করার সময় control+shift+v চাপুন তাহলেই দেখতে পাবেন যে শুধু লিখা গুলোই পেস্ট হয়েছে।

Game Bar

best game recording software

কম্পিউটারে গেম তো কম বেশি সবাই খেলি। আমিও বেশ ভালোই খেলি। আমার মত যারা গেম পাগল রয়েছেন তারা অনেকেই চান যে তাদের এই খেলার মুহূর্ত গুলো রেকর্ড করে রাখতে। আবার অনেক ইউটিউবার রয়েছেন যা গেম খেলার ভিডিও গুলো বানিয়ে থাকেন। কিন্তু এখানে বড় সমস্যা হলো গেম খেলার সময় অধিকাংশ ভিডিও রেকর্ডারে রেকর্ড করা যায় না। সমস্যার সমাধানটা উইন্ডোজ-১০ এ খুব সহজেই দেয়া আছে। গেম খেলার পূর্বে কিবোর্ড থেকে জাস্ট windows+G প্রেস করুন। আপনার গেম মুড চালু হয়ে যাবে। এখান থেকে গেম রেকর্ডিং/ গেমের স্ক্রিনশট সহ প্রচুর অপশন পাবেন। এখানে আপনি এক্সবক্স অপশনটিও পাবেন।

Lock Screen

lock screen

আমাদের প্রতিদিনের কাজের সময় মাঝে মাঝে বিশ্রাম নিতে একটু কম্পিউটারের সামনে থেকে সরে গিয়ে অন্য জাগায় গিয়ে বসি। এই সময় যদি কেও আমাদের উপস্থিতির সুযোগে ক্ষতি করে তাহলে অনেক সমস্যা হতেই পারে। এই ক্ষেত্রে আমরা সাধারণত পিসি বন্ধ করে যাই। স্ক্রিন লক করতে উইন্ডোজ স্টার্ট বারে গিয়ে উইন্ডোজে ঢুকে প্রোফাইলে ক্লিক করে লক করি। এই কাজটি শর্টকাটে করতে windows+L চাপলেই আপনার পিসি লক করে দিবে।

Smart Minimization

আপনি একটা খুব গোপন বা ইম্পরট্যান্ট কাজ করছেন। এই সময় কেউ একজন আপনার ঘরে চলে আসলো। এ সময় আপনি নিশ্চয় সব মিনিমাইজ করতে চাইবেন? আমরা যদি নরমালি মিনিমাইজ করতে চাই তাহলে মাউস দিয়ে মিনিমাইজ অংশে ক্লিক করে থাকি প্রত্যেক উইন্ডোর জন্য। কিন্তু আপনি এই কাজটি জাস্ট একটা কমান্ড দিয়েই করতে পারেন। এই কাজটির জন্য আপনাকে windows+D চাপতে হবে। তাহলেই সব মেন্যু সেম সময়ে মিনিমাইজ হয়ে যাবে। আপনি চাইলে windows+ M ও চাপতে পারেন।

Zoom

আমরা স্বাভাবিক ভাবে ব্রাউজার ওপেন করে পিডিএফ পড়ার সময় বা কোন কিছু জুম ইন করতে  ctrl + চেপে থাকি আর জুম আউট করতে control – চেপে থাকি। যদি কখনো জুম ইন করতে করতে কিংবা জুম আউট করতে করতে আবার স্বাভাবিক জুমে ফিরে আসতে হয় তাহলে জাস্ট ctrl + 0 (zero) চাপতে হবে।  আপনি চাইলে ctrl চেপে ধরে রাখা অবস্থায় মাউসের চাকা সামনে পেছনে ঘুরিয়েও জুম ইন বা আউট করতে পারেন।

Open Software From Taskbar

টাস্কবারের কাজ কি

কাজের সময় দ্রুত ওপেন করার জন্য আমরা সাধারণত প্রয়োজনীয় সফটওয়্যারগুলো টাস্কবারে পিন করে রাখি। (যে সফটওয়্যারটি টাস্কবারে পিন করতে চান তার ওপর রাইট ক্লিক করে Pin to taskbar এ ক্লিক করলে কিংবা উক্ত সফটওয়্যারটি মাউসের লেফট বাটন দিয়ে ক্লিক করে ধরে টাস্কবারে উপর এনে ছেড়ে দিলেও টাস্কবারে পিন হয়ে যাবে।) ওপেন করার সময় সাধারণত যে সফটওয়্যারটি ওপেন করতে চান সেটির ওপর ক্লিক করে ওপেন করেন। কিন্তু এটি শর্টকাটের মাধ্যমেও করা সম্ভব। ধরুন উপরের চিত্রের মত ক্রোম ব্রাউজার আপনি টাস্কবারে পিন করে রেখেছেন। এখন খেয়াল করুন তো এটি সিরিয়ালে কত নাম্বারে আছে? স্টার্ট আইকোন, কর্টানা আইকোন, ভার্চুয়াল ডেস্কটপ আইকোন এগুলো বাদ দিয়ে হিসেব করতে হবে। তাহলে দেখবেন ক্রোম ব্রাউজার ৭ নম্বর সিরিয়ালে আছে। এখন কিবোর্ড থেকে যদি win+ 7 প্রেস করেন তাহলে ক্রোম ব্রাউজার ওপেন হয়ে যাবে। মানে যে সফটওয়্যারটি অন করতে চান সেটি সিরিয়ালে যত নম্বরে আছে win চেপে তত নম্বরটি চাপলেই হবে।

এছাড়াও

  • Windows key +I চাপলে সেটিংস অপশন চালু হবে।
  • Windows key +A চাপলে নোটিফিকেশন সেন্টার খুলবে।
  • Windows key +S চাপলে কর্টানা হাজির হবে।
  • Windows key + Tab চাপলে টাস্ক ভিউ দেখা যাবে।
  • Win কী + X চাপলে সিক্রেট স্টার্ট মেন্যু ওপেন হবে।
  • Windows key + E  চাপলে এক্সপ্লোরার চালু করে ফাইলপত্রের কাজ করা যাবে।

এই ছিলো আপনাদের সাথে আমার জানা কিছু স্পেশাল শর্টকাট শেয়ার করা। আমি মনে করি এগুলো বেশ উপকারে আসবে আপনাদের প্রতিদিনের কাজে। এই সর্টকাট গুলো অবশ্যই আপনার কাজের গতিশিলতা এবং সৃজনশীলতা বৃদ্ধি করে আপনাকে আরো দক্ষ করে তুলবে। পোস্ট টি কেমন লাগলো আর যদি কোন কিছু জানার/ বলার থাকে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন।

উপরোক্ত বিষয়টি পছন্দ হলে লাইক দিন, উপকারী মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

comments

S.M. Sojib Ahmed

উপরোক্ত আর্টিকেলটি লিখেছেন | Email: smsojibahmed@gmail.com | Facebook: https://www.facebook.com/sojib.ahemed.5