গুগল ম্যাপের এই ৮টি প্রয়োজনীয় ফিচার জানেন তো? গুগল ম্যাপ ব্যবহারের নিয়ম

গুগল ম্যাপ, গুগলের একটি সেবামূলক সার্ভিস। গুগল ম্যাপ ব্যবহারের নিয়ম কম বেশি সবাই জানেন। ভার্চুয়াল জগতের এই ম্যাপিং সার্ভিসটি আমাদের প্রতিদিনের অনেক কাজেই সাহায্য করছে। এটি দিন দিন বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এর উপকারী বহু ফিচারের জন্য। গুগল ম্যাপ থেকে শুধু ম্যাপিং সুবিধাই পাওয়া যায় এমন নয়, এটা থেকে একই সময় যেকোনো স্থান সম্পর্কে রিভিউ, ছবি, ওপেন/ক্লোজ সময়, যোগাযোগ ঠিকানা, দূরত্ব, দিকনির্দেশনা, রোড ট্রাফিক ইত্যাদি আরো অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। জনপ্রিয় এই সেবা সার্ভিসটিকে গুগল বেশ কিছু নতুন নতুন ফিচার যুক্ত করে আরো আকর্ষণীয় ও সাহায্যকারী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। আজ আমি আপনাদের এমনই বেশ কিছু গুগল ম্যাপ ফিচার নিয়ে আলোচনা করবো। তাহলে চলুন জেনে নিই গুগলের নতুন এডভান্স কিছু ফিচার যা আপনার উপকারে আসবে।

শেয়ার রিয়েল টাইম লোকেশন

রিয়েল টাইম লোকেশন শেয়ার

কারো সাথে খুব জরুরী মিটিং করা প্রয়োজন কিন্তু  সে এরিয়ায় নতুন হওয়ায় জানে না আপনি কোথায় আছেন বা সে কিভাবে আপনাকে খুঁজে পাবে। এমনটি আমাদের সাথে প্রায় হয়ে থাকে। গুগল ম্যাপ এই সমস্যার কথা বিবেচনা করে তাদের সার্ভিসটিতে শেয়ার লোকেশন ফিচার অ্যাড করেছে। এর মাধ্যমে যে কারো সাথে রিয়েল টাইম লোকেশন শেয়ার করা সম্ভব ইমেইল বা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ফলে আপনাকে আপনার বন্ধুটি খুব সহজেই খুঁজে পাবে আপনার শেয়ার করা লোকেশন ফলো করে। লোকেশন শেয়ার করতে ম্যাপের মেন্যুতে গিয়ে শেয়ার লোকেশনে ক্লিক করে গেট স্টার্টিং দিয়ে শেয়ার করে দিন আপনার ইমেইল/ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ম্যাসেজে কিংবা ইনবক্সে।

সেভ পার্কিং লোকেশন

আপনার গাড়ি/বাইক পার্কিং করে আশে পাশে ঘুরতে চাচ্ছেন কিন্তু আপনার রাস্তা হারিয়ে ফেলার অভ্যাস থাকাই আপনি ঘুরতে যেতে পারছেন না। কোন সমস্যা নাই। গুগল ম্যাপ আপনাকে এই সমস্যারও সমাধান দিয়েছে। আপনি খুব সহজেই আপনার পার্কিং লোকেশন চিহ্নিত করে যে কাউকে দিতে পারবেন। আপনি এই জন্য সেই প্লেসে মোবাইলের ম্যাপ থেকে আপনার কারেন্ট লোকেশন বের করুন। তারপর যেখানে আপনার গাড়ি/বাইক গেরেজ করতে চাচ্ছেন সেখানে tap করে ধরে থাকুন। একটা প্লেস চিহ্ন চিহ্নিত দেখবেন। এখন পাশের মেন্যু থেকে সেভ ইয়োর পার্কিং অপশনে গিয়ে অ্যাড মিসিং লোকেশন করে আপনার নামে চিহ্নিত করে দিন। আপনি এখানে সময় বার দিন এসবও শেয়ার করতে পারেন।

মাল্টিপল স্টপেজ সিলেকশন

মাল্টি স্টপেজ

মনে করুন রাজশাহী থেকে ঢাকা ড্রাইভিং করে যাচ্ছেন। পথে মধ্যে নাস্তার ব্রেক, লাঞ্চ ব্রেক, পেট্রল নেয়ার জন্য ব্রেক নিবেন। আপনি চাইলে ম্যাপে কোথায় ব্রেক নিবেন তা চিহ্নিত করে দিতে পারেন। ফলে আপনি সেই সময়ে সেই স্থানে আসলেই ম্যাপ আপনাকে সতর্ক করে দিবে। ম্যাপে ডেসটিনেশন নির্ধারণ করে আবার অ্যাড ডেসটিনেশন করতে হবে। এই ভাবে  যত ইচ্ছে ডেসটিনেশন যোগ করতে পারেন।

আরো পড়ুন: অ্যান্ড্রয়েড ফোন হ্যাক হয়েছে যে ১৫টি চিহ্ন দেখলে সিওর হবেন

ক্যাব বুকিং

আমাদের দেশে বিশেষ করে ঢাকা/চট্রোগ্রাম নগরে উবার/পাঠাও সেবা বেশ জনপ্রিয় হয়েছে। আপনি এই সেবা গুলো খুব সহজেই গুগল ম্যাপ থেকে পেতে পারেন। আপনি ডেসটিনেশন ঠিক করে দিলেই দেখবেন ম্যাপের নিচে উবার এর ক্যাব ও তার ভাড়া দেয়া আছে। আপনি বুকিং দিলেই আপনার ঠিক করে দেয়া ডেস্টিনেশনে নিয়ে যাবে এই ক্যাব গুলো। আপনি রিয়েল টাইম ভিউতে দেখতে পাবেন আশে পাশে কয়টি ক্যাব রয়েছে এবং সেগুল আসতে কত সময় লাগবে।

এভোয়েড টোল রোড

টোল এভোয়েড

আপনি যখন রোড নেভিগেটর ব্যবহার করে ডেস্টিনেশনে যাচ্ছেন লং ড্রাইভে তখন পথে টোল রোড পড়াটা স্বাভাবিক। টোল রোড গুলোতে আপনাকে টাকা দিয়ে চলাচল করতে হবে। অনেকেই হয়তো এই টাকা দিতে চায় না। গুগল ম্যাপ আপনাকে টোল যুক্ত রোড আর টোল ফ্রি রোড উভয় নেভিগেট করবে। টোল যুক্ত রাস্তা হলে সেগুলোতে লিখা থাকবে টোল যুক্ত। যাইহোক, টোল ফ্রি যাতায়াত করতে ডেসটিনেশন নির্ধারণ করে অপশনে ক্লিক করুন তারপর avoid অংশে গিয়ে toll অংশে টিক চিহ্ন দিয়ে দিন।

ম্যাপে ডে রিমাইন্ডার

ম্যাপ রিমাইন্ডার

আপনি চাইলে গুগল ম্যাপে ডে রিমাইন্ডার দিয়ে রাখতে পারেন। কোন দিন কখন কোথায় কাজ করবেন আর তা কোন রুট ব্যবহার করলে আপনার সুবিধা হবে তা ম্যাপ ডে রিমাইন্ডারে সেট করে রাখতে পারেন। এই জন্য প্রথমে ম্যাপের অপশনে গিয়ে your places এ প্রবেশ করুন তারপর saved অংশে ক্লিক করে আপনার ডে সেট করে নিন।

গুগল ট্রাফিক

ম্যাপ ট্রাফিক

গুগল ট্রাফিক একটি রিয়েল টাইম সেবা। দেশর সকল বড় শহর গুলোর রাস্তায় ট্রাফিকের কি অবস্থা তা রিয়েল টাইম মনিটরিংয়ের মাধ্যমে জানিয়ে দেয় গুগল ম্যাপ। এটা এখন সব নতুন আপডেট করা ম্যাপে দেখা যায়। ট্রাফিকের ধরন ৩ টি কালারের মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। সবুজ মানে রাস্তা ট্রাফিক মুক্ত, কমলা মানে মাঝারি ট্রাফিক আর লাল মানে খুব ট্রাফিক জ্যাম।

ইওর টাইমলাইন

ম্যাপ টাইমলাইন

আপনি এই পর্যন্ত কত ডিফারেন্ট প্লেস ঘুরেছেন যেগুলোতে আপনি সাধারণত কম থাকেন এবং কোন যানবাহনে কত সময় কাটিয়েছেন তার বিস্তারিত সব তথ্য পাওয়া যায় এই টাইম লাইনে। এটা পেতে ম্যাপের অপশনে গিয়ে your timeline এ ক্লিক করুন।

এছাড়াও গুগল ম্যাপের আরো অনেক গোপন সুযোগ সুবিধা রয়েছে। আর সবচেয়ে মজার বিষয় হলো আপনি যদি গুগলের লোকাল গাইড হিসেবে ম্যাপ এডিটিং করেন তাহলে আপনি গুগল প্লে স্টোর এ এপস ডাউনলোড করাতে বিশেষ সুবিধার অফার পাবেন সেই সাথে গুগল আপনার অ্যাকাউন্টটিকে এক্সট্রা অনেক সুবিধা দিবে যা আপনি প্রায় প্রায় মেইলের মাধ্যমে জানতে পারবেন। গুগল ম্যাপের লোকাল গাইড হিসেবে প্লেস এডিট / অ্যাড/ রিভিউ/ ছবি সংযুক্ত করলে আপনি যদি লেভেল ৪ এ থাকেন তাহলে ১ টেরা বাইট ফ্রি গুগল ড্রাইভ ক্লাউড স্টোরেজ পাবেন। আর গুগল ম্যাপ প্রতিনিয়তই নতুন নতুন ফিচার দ্বারা আপডেট হচ্ছে তাই এর সুবিধা গুলো বেড়েই চলেছে। আমরা একে যথাযথ ব্যবহার করতে পারলে লাইফটা সত্যি অনেক সহজ হয়ে আসবে। আজকের পোস্টটি কেমন লেগেছে তা জানাবেন।

উপরোক্ত বিষয়টি পছন্দ হলে লাইক দিন, উপকারী মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

comments

S.M. Sojib Ahmed

উপরোক্ত আর্টিকেলটি লিখেছেন | Email: smsojibahmed@gmail.com | Facebook: https://www.facebook.com/sojib.ahemed.5