প্রযুক্তির এযুগে সন্তানের প্রতি পিতা মাতার দায়িত্ব করণীয় ও বর্জনীয়

সন্তানদের ভাল কে না চায়? কথাই আছে পৃথিবীতে অনেক খারাপ নারী পুরুষ থাকলেও একটাও খারাপ পিতা মাতা নেই। আজকের আলোচনার বস্তু হল প্রযুক্তির এই ডিজিটাল যুগে সন্তানের প্রতি পিতা মাতার দায়িত্ব, করণীয় ও বর্জনীয় বিষয়াদি নিয়ে। আমি কথাগুলোকে যুক্তির বিচারে সাজিয়ে বলতে চেষ্টা করব। আশা করি আপনি মেনে নেয়ার ক্ষেত্রে অযথায় গোঁড়ামীর আশ্রয় নিবেন না। আমার ছেলে মেয়েকে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বানাব কিন্তু এইচএসসির আগে নো কম্পিউটিং নো ফেসবুকিং নো ইউটিউবিং জাতীয় পিতা মাতাগুলো একটু মনযোগ দিয়ে পড়বেন প্লিজ। কারণ আজকের পোস্টটি আপনারকেই উৎসর্গ করতে যাচ্ছি।

আচ্ছা বলুন তো বাজারের কোন পন্য কেমন সেটা কে ভাল বুঝবে ক্রেতা আই মিন যিনি ব্যবহারকারী তিঁনি? নাকি প্রস্তুতকারক কোম্পানী? অবশ্যই ব্যবহারকারী তাইনা? যারা ভাবছেন প্রস্তুতকারক কোম্পানী তারা পড়ার টেবিলে বসে বসে আপাতত ‘ইন্টারপ্রিনিউরশীপ’ বইটা পড়তে পারেন। যে কথা বলতে চাচ্ছিলাম তা হলো আপনার সন্তানের ভাল কে বুঝবে? সন্তান নিজেই নাকি অভিভাবক হিসেবে আপনি? নিশ্চয় এবার অংকটা আর মেলাতে পারছেন না তাইনা? জ্বি… অনেকেই ভুলের শুরুটা এখান থেকেই করে থাকেন।

মোবাইল-ফোন/কম্পিউটার ব্যবহারের ক্ষেত্রে নিশ্চয় কড়াকড়ি আরোপ করে দিয়েছেন আপনার সন্তানদের প্রতি তাইনা? ক্ষেত্র বিশেষে বিশেষ করে সন্তান যদি টিন-এজার হয়ে থাকে তাহলে তো কোন কোন অভিভাবক তার সন্তানদের মোবাইল-ফোন/কম্পিউটার ব্যবহার করতেই দেন না তাইনা? আর সন্তান যদি মেয়ে হয়ে থাকে তাহলে তো বলাই বাহুল্য। অভিভাবক হিসেবে আপনি কি কখনও চিন্তা করেছেন; কড়াকড়ি, নজরদারি কিংবা ব্যবহার করতে না দেয়ার মাধ্যমে আপনি তাকে আরো বেশি অনৈতিক অবক্ষয়ের দিকে ঠেলে দিলেন? কারণ সে কোন না কোন ভাবে বন্ধু/বান্ধব বা ভিন্ন পরিবেশে প্রতিনিয়তই চলাচল করছে। প্রয়োজন কিন্তু আইন মানে না জানেনই তো! বিষয়টা মাথায় ভালভাবে ঢোকানোর জন্য একটা উদাহরণ দিচ্ছি তা হলো; ধরুন কোন যুবক/যুবতীর যদি স্ত্রী/স্বামী থেকে থাকে তাহলে তার অকাম-কুকাম করার সম্ভাবনা বেশি থাকে? নাকি কোন যুবক/যুবতীর স্ত্রী/স্বামী না থাকলে তার অকাম-কুকাম করার সম্ভাবনা বেশি? নিশ্চই না থাকলে সম্ভাবনার পরিমাণ বেশি তাইনা? তাহলে আপনি কেন কম্পিউটার/ফোনটা কেঁড়ে নিচ্ছেন কিংবা ব্যবহার করতেই দিচ্ছেন না?

এবার একটা ভয়াবহ বিষয় নিয়ে কথা বলতে যাচ্ছি তা হলো; অনেক অভিভাবকই তাদের টিনেজার সন্তানদের কোন মতে কম্পিউটার/মোবাইল-ফোন ব্যবহার করতে দিলেও সোস্যাল সাইট (ফেবু, টুইটার, ইউটিউব) ব্যবহারের উপর ডাইরেক্ট রেসট্রিকশন দিয়ে থাকেন। কেউবা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার জন্য কম্পিউটার/ফোনটা ব্যবহার করতেই দেন না! কাজ কিন্তু মোটেও ঠিক করলেন না। আবারো একটা উদাহরণের মাধ্যমে বিষয়টা ক্লিয়ার করার চেষ্টা করছি তা হলো; মাথা ব্যাথা হলে কি মাথা কেটে ফেলেন? নিশ্চয় না। তো প্রবলেম যখন কম্পিউটার/মোবাইল-ফোন নিয়ে তখন কেন কম্পিউটার/মোবাইল-ফোনটি কেড়ে নিচ্ছেন বা ব্যবহারে রেসট্রিকশন বেঁধে দিচ্ছেন? কি? তাহলে আপনার সন্তানকে কিভাবে বাঁচাবেন ভেবে কুল পাচ্ছেন না? এতো ভাবতে হবে না উপায় তো কিছু না কিছু আছেই আর তা হল ছোট থাকতেই আপনার সন্তানদের নৈতিক শিক্ষা দিতে হবে! গাছটি চাঁরা অবস্থায় যখন আছে তখন যদি তাকে বাঁকা করে বেঁধে দেন তাহলে সে বাঁকা হয়েই বড় হবে। তেমনি আপনার সন্তানটিকে যদি ছোট থেকেই নৈতিক শিক্ষা বা ধর্ম শিক্ষা দিয়ে থাকেন তাহলে সে সেভাবেই বড় হবে। বড় হবার পর যদি আপনি গাছটিকে আবার সোজা করতে চান তাহলে কি পারবেন? ঠিক আপনার সন্তানটিকে যদি ছোট থেকেই নৈতিক শিক্ষা না দিয়ে থাকেন তাহলে বড় হলে কতটুকু পারবেন তা নিশ্চয় ক্লিয়ার বুঝে গেছেন?

পিতা মাতার দায়িত্ব

বিশ্ব যখন এগিয়ে চলেছে। বাচ্চা বাচ্চা ছেলেরা যখন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগীতা করছে তখন আপনি আপনার সন্তানকে মোবাইল-কম্পিউটার থেকে দূরে সরিয়ে রাখছেন আর ভাবছেন মনে হয় এটাই তার জন্য মঙ্গলজনক। দুঃখিত যে, আপনি ভুল পথটিই বেঁছে নিয়েছেন। আপনি যতই বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করেন না কেন আপনার সন্তান ইউটিউব (ব্লু-ফিল্ম) ঠিকই দেখবে। আপনি যদি খোদাভীতির বিষয়টা তার মগজে গেঁথে দিতে পারেন তাহলেই সে কেবল আপনার অনুপস্থিতেও খোদার ভয়ে ভীত হয়ে অনৈতিক কর্মকান্ড করতে পারবে না। বিষয়টা যদি মাথায় না ঢুকে থাকে তাহলে এখনই একটা ধর্মহীন আর একটা ধর্মভীরু সমাজের দিকে তাকান! আশা করি বিষয়টা পরিষ্কার বুঝবেন। আপনি যতই বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করেন না কেন এক সময় আপনার সন্তানটি ঠিকই ফেসবুক চালানো শিখবে। হতে পারে সেটা বন্ধু-বান্ধবের পাল্লাই পড়ে ভুল ভাবে তাদের মত করে। কিন্তু আপনিও পারতেন আপনার সন্তানটির হাতে কম্পিউটার ধরিয়ে দিতে। আপনিই কিন্তু পারতেন আপনার সন্তানটিকে ফেসবুক চালানো শিখাতে। আপনিই কিন্তু পারতেন আপনার সন্তানকে প্রযুক্তির পজেটিভ বিষয়গুলো আতঃস্থ করাতে। আপনিই কিন্তু পারতেন তারে ক্ষুদে প্রোগ্রামার হবার সাহায্যকারী হতে। আপনিই কিন্তু পারতেন একজন ভবিষ্য-জাকারবার্গের অভিভাবক হতে। একটা বিষয় মনে রাখবেন আপনার সন্তান কিন্তু ঠিকই অস্ত্র ধরবে সেটা যদি বন্ধুবান্ধবের পাল্লাই পড়ে ধরে তাহলে হয়ত সন্ত্রাসী হবার শিক্ষা পাবে আর সেটা যদি আপনার পাল্লাই পড়ে ধরে তাহলে হয়ত সন্ত্রাসীদের বিপক্ষে ব্যবহার করা শিখবে। মনে রাখবেন প্রযুক্তিও একটা অস্ত্র!

পরিশেষে বলতে চাই, সন্তানদের বেশী টাই্ট দেয়া ঠিক না তাহলে একসময় বাঁধন ছিড়ে যাবে। আবার খুব বেশি সোহাগ করাও ঠিক না তাহলে মাথায় উঠে যাবে। দুটোর মধ্যেই ভারসম্য রাখতে হবে। পরিপূর্ণভাবে গড়ে তুলতে হলে সুবিধা দিয়ে এবং সুবিধার ক্ষতিকর দিক বুঝিয়েই গড়ে তুলতে হবে; সুবিধা থেকে বঞ্চিত করে নয় ।

উপরোক্ত বিষয়টি পছন্দ হলে লাইক দিন, উপকারী মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

comments

Admin

উপরোক্ত আর্টিকেলটি লিখেছেন | Email: admin@banglacourse.com | Facebook: www.facebook.com/BanglaCourse