Faststone Capture | সেরা স্ক্রিন রেকর্ডার, এডিটর এবং ফটোশপের বিকল্প সফটওয়্যার

আপনি ইউটিউবে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল নিয়ে কাজ করেন কিংবা আপনি একজন শিক্ষক আর আপনার ছাত্রদের কম্পিউটারের বিভিন্ন অপারেশন নিয়ে ক্লাস নেন। আপনি আপনার কম্পিউটারের কাজ গুলোকে রেকর্ড করতে চান যেন তা ভিডিও কিংবা স্ক্রোলিং স্ক্রিনশর্ট আকারে নিজের মত করে ভবিষ্যতে ব্যবহার করতে পারেন।

কেন Faststone Capture ব্যবহার করবেন?

আপনি এখন নিশ্চয় একটি স্ক্রিন রেকর্ডার সফটওয়্যার ও স্ক্রিন ক্যাপচার সফটওয়্যার খুঁজছেন উক্ত কাজগুলো করত? অনলাইনে প্রচুর এমন সফটওয়্যার রয়েছে। কিন্তু আপনি সফটওয়্যারটি নিয়ে কাজ করবেন আর কোনটি খুব ভালো মানের তাই ভাবছেন এই তো? আচ্ছা ধরুন আপনি একটি স্ক্রিন রেকর্ডার ডাউনলোড দিলেন আর তা দিয়ে রেকর্ডিংয়ের কাজ শুরু করলেন। আপনি দেখলেন যে স্ক্রিন রেকর্ডারটি রেকর্ড করেছে ঠিকই কিন্তু বেশ কিছু সমস্যা আছে। যেমন ধরুন রেকর্ড করা ভিডিও ক্লিপটির কোয়ালিটি তেমন ভাল না, সাউন্ড কোয়ালিটি মন মত পেলেন না আবার এমনও হতে পারে ভিডিও ক্লিপটি কয়েক মিনিটের হলেও এর সাইজ কয়েক শত এমবি বা জিবি হয়ে যাচ্ছে। এরকম অনেক কিছুতেই হয়তো আপনি সন্তুষ্ট হতে পারছেন না। আবার ধরুন সম্পূর্ণ স্ক্রোলিং পেইজের এমন বিশাল স্ক্রিনশর্ট নিতে চাচ্ছেন কিন্তু মনের মত সফটওয়্যার খুঁজেই পাচ্ছেন না।

Faststone Capture

আপনাদের সন্তুষ্টির জন্য আজ আমি এমন একটি জনপ্রিয় স্ক্রিন রেকর্ডারের সাথে পরিচয় করিয়ে দিব যা আমার দেখা সেরা স্ক্রিন রেকর্ডার। ফাস্টস্টোন ক্যাপচার, একটি সম্পূর্ণ অন্য মাপের একটি স্ক্রিন রেকর্ডার, স্ক্রোলিং ফটো ক্যাপচারার যা আপনি চাইলে ভিডিও এডিটর বা ফটো এডিটর হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন। এমন কি নাই এই স্ক্রিন রেকর্ডারে ,  আপনি আপনার চাহিদা মত মোটামুটি সব কিছুই এতে পাবেন। মাল্টিপারপাজ কাজে ব্যবহার উপযোগী। একেবারে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ( হাহাহা, মজা করলাম) । যাইহোক, চলুন এই  Faststone Capture সম্পর্কে কিছু কাজ জেনে নিই।

ভিডিও স্ক্রিন রেকর্ডার ও ভিডিও এডিটর

Faststone Capture দিয়ে আপনি আপনার স্ক্রিন রেকর্ডিং করার স্বাদটি অন্য এক লেভেলে অনুভব করবেন। এর অপারেশন খুবই সরল হওয়ায় যে কেউ  খুব সহজেই একে ব্যবহার করতে পারে। আমি একে ব্যক্তিগতভাবে অনেক বছর ধরে ব্যবহার করে আসছি যা আমাকে স্ক্রিন রেকর্ডিংয়ে খুব সন্তুষ্টি দিয়েছে। এর মাধ্যমে আপনি আপনার ইচ্ছা মত স্ক্রিন সাইজ নিয়ে কাজ করতে পারেন। আবার আপনি চাইলে কিছু নির্ধারিত সাইজ নিয়েও কাজ করতে পারেন। আপনি টাস্কবার সহ কিংবা টাস্কবার বাদে স্ক্রিন রেকর্ডের সুবিধা এখানে পাবেন। সবচেয়ে ভাল লাগা দিকটি যদি বলতে চাই আমি তাহলে বলব যে এর ভিডিও কোয়ালিটি সত্যি আপনাকে অবাক করবে। অসাধারণ এইচডি ক্লিপ সেই সাথে ভয়েস দেয়ার জন্য রয়েছে ফিল্টারিং ব্যবস্থা। আপনি ভিডিওর শুরুতে ক্যাপশন অ্যাড করে দিতে পারেন।

Download Faststone Capture

ভিডিও তো রেকর্ড করলেন এখন একটু আরটু মডিফাই করতে বা এডিট করতে আপনাকে বেশি চিন্তা করতে হবে না। আপনি এই সফটওয়্যার দিয়েই ছোট খাট এডিট করে নিতে পারেন যেমন ট্রিমিং, জুমিং, কাটিং, প্যানিং ইত্যাদি। এখন আপনি বলবেন যে সব কিছু মানলাম কিন্তু ভিডিওর সাইজ কেমন হবে তাই তো? অধিকাংশ রেকর্ডার সফটওয়্যার গুলো আমি ব্যবহার করে কমন একটা সমস্যা দেখেছি আর তা হলো ২/৩ মিনিতের একটা স্ক্রিন রেকর্ডে সাইজ হয়ে দাঁড়ায় কয়েক শত মেগাবাইট থেকে জিবি ছুই ছুই। কিন্তু আপনাকে এই সফটওয়্যারটি হতাশ করবে না। আপনাকে এইচডি রেকর্ডিং দেয়ার সাথে সাথে ভালো সাউন্ড কোয়ালিটি আর সাথে অল্প সাইজও পাবেন। এমনকি ১ ঘন্টার রেকর্ড করা ক্লিপে সাইজ দাঁড়াবে মাত্র কয়েক শত মেগাবাইট। কি, খুশি লাগছে এখন?

স্ক্রিনশট ও ফটো এডিটর

উইন্ডোজের নিজের স্ক্রিনশট নেয়ার অপশন (Start menu> all program> snipping tool) থাকলেও তা বেশ বিরক্তিকর। যেমন ধরুন আপনি উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে কোন একটা কিছুর স্ক্রিনশট নিলেন। এখন আপনাকে একটা ইমেজে ক্লিক করে এডিট অপশনে গিয়ে তারপর পেস্ট করে কেটে বা একটু ঠিক ঠাক করে নিতে হবে তাই তো? (যদিও তেমন এডিটিং এর সুবিধা নেই)

Best screen recording software

আপনি যদি Faststone Capture ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে এমন কোন কষ্টই করতে হবে না। আপনি জাস্ট ক্লিক করবেন আর স্ক্রিনশট রেডি। শুধু ক্লিক করেই বিভিন্ন ধরণের সঠিক মাপের স্ক্রিন শট পেয়ে যাবেন। ফিক্সড সাইজের স্ক্রিন শট সহ আপনি কিছু অন্য মাত্রার স্ক্রিনশট গুলোও পেতে পারেন। ফ্রি হ্যান্ড স্ক্রিনশট, উইন্ডোজ বার বাদ দিয়ে কিংবা ফুল সাইজ, আবার চাইলে অ্যাক্টিভ অংশ বা স্ক্রোলিং করে নিচের অংশ গুলোও স্ক্রিন শট হিসেবে পেতে পারেন। আর মজার বিষয় হলো আপনি স্ক্রিনশট নেয়ার পর এক্সট্রা কোন সফটওয়্যারে গিয়ে এডিট করা লাগবে না। কারণ স্ক্রিন শট নেয়ার সাথে সাথেই আপনি এডিট অপশন পেয়ে যাবেন।

ফটোশপের ছোট ভাই

ফটোশপ সফটওয়্যার চিনেনা এমন কেউ নাই। আমরা ছবি এডিট করতে ফটোশপে যায় কিন্তু আপনি চাইলে এই সফটওয়্যার থেকেই ফটোশপের ক্ষুধাটা একটু কমাতে পারবেন। আপনি স্ক্রিন শট নেয়া মাত্রই আপনাকে নিয়ে যাবে মিনি ফটোশপে। আপনি লিখালিখি থেকে শুরু করে ছবি ব্লার করা, কাটাকাটি করা, কালার রিফর্ম করা, স্পট লাইট ইফেক্ট দেয়া, পেইন্ট করা, রিসাইজ, এক ফটোর ভেতরে ফটো যোগ করা, ক্যাপশন দেয়ার কাজও করতে পারে। এটা সত্যি একটি মিনি ফটোশপ বলে আমি মনে করি।

অসাধারণ কিছু এক্সট্রা ফিচার

আপনি এক্সট্রা ফিচার হিসেবে পাবেন ছবি সংযোজন করা এমএস ওয়ার্ড কিংবা এক্সেল শিটে। আবার ইমেল করতে সরাসরি স্ক্রিনশট তুলেই পাঠানো সম্ভব। ভিডিও এডিটর হিসেবেও ভালোই কাজ করে এটি। পাওয়ার পয়েন্টে স্ক্রিনশট ব্যবহার করতে পারেন সরাসরি এখান থেকে। ভিডিও বা ছবির জন্য ডিলে টাইম দেয়ার অপশন আছে এতে। আর সিক্রেট রক্ষা করতে আছে ওয়াটার মার্ক অপশনটাও।

সেরা স্ক্রিন রেকর্ডার সফটওয়্যার

যাইহোক, এই সফটওয়্যারটি বেশ ভালো লেগেছে আমার। আর তাছাড়াও অনেকেই এটা নিয়ে ইন্টারনেটে খুব ভালো রিভিউ জানিয়েছেন। এটার জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এর অপারেশন সরল আর ভিডিও/ ইমেজের কোয়ালিটি সবার কাছে গ্রহণীয় হওয়ায় আমি আপনাদের এই সফটওয়্যার টি ব্যবহার করে দেখার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। ফুল ভার্সন ডাউনলোড লিংক দেয়া হল। সঙ্গে PDF টিউটোরিয়ালও পাবেন। আর হ্যাঁ এটি মাত্র 4 মেগাবাইটের সফটওয়্যার।

Download Faststone

এই ছিলো আমার ব্যবহার করা বেস্ট একটি স্ক্রিন রেকর্ডার / স্ক্রিনশট ক্যাপচার সফওয়্যার পরিচিতি। আপনি চাইলেই এটা ব্যবহার করে আপনি আপনার স্ক্রিন রেকর্ডের কাজটা সেরে নিতে পারেন। যদি আপনারা কেউ এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার অভিজ্ঞতাটি কমেন্টে শেয়ার করবেন। আর এই সফটওয়্যার সম্পর্কে কোন কিছু সমস্যা জানানোর থাকলে তা কমেন্টে জানাবেন। আমরা যথাসাধ্য সহায়তা করবো।

উপরোক্ত বিষয়টি পছন্দ হলে লাইক দিন, উপকারী মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

comments

S.M. Sojib Ahmed

উপরোক্ত আর্টিকেলটি লিখেছেন | Email: smsojibahmed@gmail.com | Facebook: https://www.facebook.com/sojib.ahemed.5