ছোট ভাইয়ের গার্লফ্রেন্ড এর সাথে একদিন

গার্লফ্রেন্ড হঠাত করে এই ম্যাসেজটি ছেলেটিকে সেন্ড করেছে। যাতে লেখা আছে “কান্না করো না, আমি তো আসবই আবার।” ম্যাসেজটি দেখার পর থেকেই ছেলেটির হার্ট বিট বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে মেয়েটি ছেলেটির ফ্রেন্ড লিস্টে ছিল না। শুধু তাই না, ছেলেটি মেয়েটিকে ফিজিক্যালি চেনেও না। তাছাড়া মহিলা পলিটেকনিকের কোন মেয়ের সাথে তো ছেলেটির কোন কালেই কোন দুঃসম্পর্ক ছিল না।

তাহলে কেমনে কি? চিন্তায় ছেলেটির সম্পুর্ণ র‍্যাম অভার লোডেড হতে থাকল কিন্তু কোন কূল কিনারা হচ্ছে না। অতঃপর ছেলেটি ভাবতে শুরু করল; হয়ত রঙ নাম্বার থেকে ভুলে চলে এসেছে। নাহ! তা কী করে হয়? ফেসবুকে এরকম সিরিয়াস ম্যাসেজ কেউ ভুল করে দেয় নাকি! ?

ফেসবুক ম্যাসেজ

ঘটনাটি গতকাল রাতের। এরপর ছেলেটি সিদ্ধান্ত নিল মেয়েটিকে একটি রিপ্লাই দিতে হবে। কিন্তু কি লিখবে কিছুই ভেবে পাচ্ছে না। কিচ্ছুক্ষণ ভাবনার অবসান ঘটিয়ে ছেলেটি রিপ্লাইয়ে লিখল; “দুঃখিত! আপনি কি ভুল করে আমাকে টেক্সট করেছেন নাকি সত্যিই আমাকে?” না জানি কি রিপ্লাই আসে সেটার জন্য ছেলেটি ক্ষণ গুনছে। ?

ম্যাসেঞ্জারে টিং শব্দ করে একটি ম্যাসেজ আসলো। ছেলেটি খুব আগ্রহ নিয়ে সেটি ওপেন করতেই দেখলো এ তো আরেকটি মেয়ে। এই মেয়েটিকেও ছেলেটি চেনে না। নাহ! এমন উদ্ভট পরিস্থিতির স্বীকার ছেলেটি আগে কখনও হয় নি। হঠাত করে ম্যাসেঞ্জারের হোম ট্যাবে এসে দেখল এমন অনেক ব্যক্তি যারা প্রায় সবাই অপরিচিত। হোয়াট?

তাহলে কি ছেলেটির অ্যাকাউন্ট অন্য কেউ ব্যবহার করে এসব ম্যাসেজ আদান প্রদান করেছে? তার মানে অ্যাকাউন্টটা কি হ্যাকিং এর স্বীকার হয়েছে? তা কিভাবে সম্ভব? কেননা ছেলেটির তো টু স্টেপ ভেরিফিকেশন অন করা আছে। নাহ ছেলেটির মাথা এখন পুরোপুরি হ্যাং। ব্লু স্ক্রিন এরর। ?

হঠাত করে মনে হল কিছুক্ষণ আগে তো পাশের রুমের ছোট ভাই ফোন চেয়ে নিয়ে গিয়েছিল। তাহলে ওই কি এসব করেছে? ছেলেটি এবার আবিষ্কার করল; না এই অ্যাকাউন্টটাই আসলে তার নিজের না। ছেলেটি এতক্ষণ পাশের রুমের ঐ ছোট ভায়ের অ্যাকাউন্ট ইউজ করছিল।

ধুর্সালা! ফোন নিয়ে গিয়ে ফেসবুক করেছে কিন্তু লগ আউট না করেই ফোন দিয়ে গেছে। কেমন লাগে এখন বলেন তো? একটা ম্যাসেজের রিপ্লাইও দিয়ে ফেলেছে তার ছোট ভাইয়ের অমুককে। ?

মোরাল অফ দ্যা হিস্ট্রিঃ অন্যের ফোন নিয়ে তাতে নিজের অ্যাকাউন্টে ঢুকলে লগ আউট করতে ভুলে যাবেন না। এতে করে আপনি এবং ফোনওয়ালা দুজনেই মানসিক শান্তিতে থাকবেন। এর রকম ভুল যাতে আর কেউ না করে তাই শেয়ার করে জানিয়ে দিন অন্যদের।

উপরোক্ত বিষয়টি পছন্দ হলে লাইক দিন, উপকারী মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

comments

Admin

উপরোক্ত আর্টিকেলটি লিখেছেন | Email: admin@banglacourse.com | Facebook: www.facebook.com/BanglaCourse